৯৮ রানে অলআউট মাশরাফির রংপুর রাইডার্স

৯৮ রানে অলআউট মাশরাফির রংপুর রাইডার্স

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ(বিপিএল) এর ষষ্ঠ আসরের প্রথম
ম্যাচে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে সব উইকেট হারিয়ে রংপুর রাইডার্স এর সংগ্রহ ৯৮ রান।

সব শংকা উড়িয়ে শনিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে গড়ায় বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ষষ্ঠ আসর। উদ্বোধনী ম্যাচে টস ভাগ্যে জেতেন চিটাগং অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। রংপুর দলনায়ক মাশরাফিকে হারিয়ে আগে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন তিনি।

ব্যাটি করতে নেমে শুরুটা শুভ হয়নি মাশরাফি বাহিনীর । বোলিং তোপে পড়ে তারা। চিটাগংয়ের দুই পেসার রব্বি ফ্রাইলিঙ্ক ও আবু জায়েদ রাহির গতি আর সুইংয়ে বিভ্রান্ত হয়ে একে একে সাজঘরে ফেরেন অ্যালেক্স হেলস, মেহেদী মারুফ, মোহাম্মদ মিথুন ও রাইলি রুশো। অ্যালেক্স হেলস, মেহেদী মারুফ ও মোহাম্মদ মিথুনকে সাজঘরে ফেরান ফ্রাইলিঙ্ক। আর রাইলি রুশোকে শিকার বানান রাহি।

সেই চাপের মধ্যে বেনি হাওয়েল ও ফরহাদ রেজাকে ড্রেসিংরুমের পথে ধরান নাইম হাসান। এতে ৩২ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ে পড়ে রংপুর। এ পরিস্থিতে খালেদ আহমেদকে উইকেট বিলিয়ে দেন মাশরাফি। ফলে বিপিএল ইতিহাসে সর্বনিম্ন রানে গুটিয়ে যাওয়ার শংকা দেখা দেয়।

কিন্তু সেই পথে বাধা হয়ে দাঁড়ান রবি বোপারা। অষ্টম উইকেটে সোহাগ গাজীকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন তিনি। ভালো খেলছিলেন তারা। তবে হঠাৎ খেই হারান গাজী। ফ্রাইলিঙ্কের চতুর্থ শিকার হয়ে ফেরেন তিনি। ফেরার আগে করেন ২১ রান। সবচেয়ে বড় কথা, বোপারার সঙ্গে তার ৪৯ রানের জুটিতে সর্বনিম্ন স্কোরের লজ্জার হাত থেকে বাঁচে রংপুর।

একের পর এক ব্যাটসম্যান যাওয়া-আসার মিছিলে যোগ দিলেও থেকে যান বোপারা। একপ্রান্ত আগলে একাই লড়াই চালিয়ে যান তিনি।এক পর্যায়ে রাহীর শিকারে পরিণত হন বোপারা। ফেরার আগে ৪৭ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় ৪৪ রানের লড়াকু ইনিংস খেলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ৯৮ রানে গুটিয়ে যায় রংপুর।

চিটাগংয়ের হয়ে রব্বি ফ্রাইলিঙ্ক নেন ৪ উইকেট। ২টি করে ঝুলিতে ভরেন নাঈম হাসান ও আবু জায়েদ রাহি। ১ উইকেট বাগে টানেন খালেদ আহমেদ। এ ম্যাচে চিটাগং ভাইকিংস এর হয়ে   ৬ বছর পর মাঠে নামছেন মোহাম্মদ আশরাফুল। জাতীয় দলে ফিরতে বিপিএলে চোখ তার।

এ ম্যাচে খেলছেন না রংপুর রাইডার্স এর অন্যতম তারকা    ক্রিস গেইল। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ঢাকায় এসে পৌঁছাতে না পারায় রংপুরের হয়ে মাঠে নামতে পারেননি তিনি।

রংপুর রাইডার্স একাদশ:

অ্যালেক্স হেলস, মোহাম্মদ মিথুন, রাইলি রুশো, মেহেদি মারুফ, রবি বোপারা, বেনি হাওয়েল, ফরহাদ রেজা, মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), সোহাগ গাজী, নাজমুল ইসলাম অপু ও শফিউল ইসলাম।

চিটাগাং ভাইকিংস একাদশ:

মোহাম্মদ শাহজাদ, ক্যামেরন ডেলপোর্ট, মোহাম্মদ আশরাফুল, মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক), মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, সিকান্দার রাজা, রব্বি ফ্রাইলিঙ্ক, নাঈম হাসান, সানজামুল ইসলাম, আবু জায়েদ রাহি ও খালেদ আহমেদ।

Share this post