৪০ তম বিসিএস সার্কুলার প্রকাশ

৪০ তম বিসিএস সার্কুলার প্রকাশ

বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (বিপিএসসি) ৪০ তম বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বিসিএস) পরীক্ষার সার্কুলার প্রকাশ করেছে।

আজ মঙ্গলবার (১১ সেপ্টেম্বর) কমিশন বিভিন্ন ক্যাডারের খালি পদের বিরুদ্ধে ১৯০৩ জনকে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে।

আগ্রহীরা অনলাইনে ৩০ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টা থেকে আবেদন করতে পারবেন। আবেদন করা যাবে ১৫ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত।  সাধারণ ক্যাডারে ৪৬৫টি পদের মধ্যে ২০০টি প্রশাসন ক্যাডার পদ রয়েছে। প্রফেশনাল/টেকনিক্যাল ক্যাডারে ৫৬৮টি পদ এবং শিক্ষা ক্যাডারে ৮৭০টি পদে নিয়োগ দেয়া হবে।

৪০ তম বিসিএসে প্রার্থীদের ২০০ নম্বরের একটি লিখিত এমসিকিউ প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। পরীক্ষার সময় থাকবে ২ ঘণ্টা। বাংলাভাষা ও সাহিত্যে ৩৫ নম্বর, ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্যে ৩৫ বাংলাদেশ বিষয়াবলির, আন্তর্জাতিক বিষয়াবলির ২০, ভূগোল ( বাংলাদেশ ও বিশ্ব), পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ১০, সাধারণ বিজ্ঞান ১৫, কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি ১৫, গাণিতিক যুক্তি ১৫, মানসিক দক্ষতা ১৫, নৈতিকতা মূল্যবোধ ও সুশাসন বিষয়ে ১০ নম্বরের  প্রশ্ন রাখা হবে।

উল্লেখ্য যে শতাংশ কোটা প্রথা বহাল রেখেই ৪০ তম বিসিএস এর সার্কুলার প্রকাশ করেছে বিপিএসসি।

 

 

পিএসসি সূত্রে জানা গেছে, কোটা বিষয়ে সরকারের সবশেষ গ্রহণ করা সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এই বিসিএসের মাধ্যমে ক্যাডার নিয়োগ হবে। অর্থাৎ এই বিসিএসেও ৫৬ শতাংশ কোটা পদ্ধতি বহাল থাকছে। কারণে কোটার বিষয়ে সরকার গঠিত কমিটি এখনও এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারে নি। কোটা পুরোপুরি বাতিল করা হবে নাকি সংস্কার করা হবে এ নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আজও আসে নি। বিষয়টি পর্যালোচনা করছে কমিটি।

কোটা রেখে ৪০ তমের সার্কুলারের বিষয়ে পিএসসির চেয়ারম্যান মো. সাদিক বলেন, ৪০তম বিসিএসে মোট ১ হাজার ৯০৩ জন ক্যাডার নেওয়া হবে। এই নিয়োগের ক্ষেত্রে কোটা বিষয়ে সরকারের সবশেষ গ্রহণ করা সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে।

অন্যদিকে কোটার সংস্কারের প্রজ্ঞাপন জারির পর ৪০ তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি জারির দাবি জানায় কোটা আন্দোলনকারীরা। ৪০ তম বিসিএসের সার্কুলার হওয়ার আগে আজ মঙ্গলবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করা হয়। এ সময় তিন দফা দাবিও উত্থাপন করা হয়।

শিক্ষার্থী ও চাকরি প্রত্যাশীরা পাঁচ দফার আলোকে আর কালক্ষেপণ না করে দ্রুততম সময়ের মধ্যে কোটা সংস্কারের প্রজ্ঞাপন জারির দাবি জানান।

সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক বিন ইয়ামিন মোল্লা। এ সময় তিনি ৩দফা দাবি উত্থাপন করেন। দাবিগুলো হচ্ছে- ভিত্তিহীন, মিথ্যা ও হয়রানিমূলক সব মামলা প্রত্যাহার করা, হামলাকারীদের উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করা এবং পাঁচ দফার আলোকে কোটা পদ্ধতির যৌক্তিক সংস্কার করে প্রজ্ঞাপন জারি।

Share this post