মাদকবিরোধী অভিযানে ১৩ দিনে নিহতের সংখ্যা ৮৬!!

মাদকবিরোধী অভিযানে  ১৩ দিনে নিহতের সংখ্যা ৮৬!!

দেশজুড়ে র‍্যাব ও পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযানে এ পর্যন্ত  ১৩ দিনে নিহতের সংখ্যা ৮৬ তে দাঁড়িয়েছে ।
গত কাল মাদকবিরোধী অভিযানে র‍্যাব ও পুলিশের সাথে  বন্দুক যুদ্ধে
টেকনাফের পৌর কাউন্সিলরসহ ১১ জেলায় ১১ জন নিহত হয়েছে।
সবাই মাদক ব্যবসায়ী বলে দাবি, র‍্যাব-পুলিশের।

গতরাতের এসব ঘটনায় ঘটনাস্থল থেকে ইয়াবা, গাঁজা, ফেনসিডিলসহ বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য,
দেশি-বিদেশি অস্ত্র উদ্ধার করার হয় বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

চট্টগ্রামঃ  চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলিতে নিহত হয়েছে
রায়হান উদ্দিন(২৮) নামের  এক মাদক ব্যবসায়ি ।গতকাল রাত সাড়ে ১২টার দিকে
সীতাকুণ্ডের মুরাদপুর ইউনিয়নের গুলিয়াখালী বেড়িবাঁধ স্লুইসগেট এলাকায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধের’ এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় আহত হয়েছে পুলিশের ৩ সদস্য।  নিহত রায়হান উদ্দিন এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী বলে পুলিশ জানিয়েছে।
তাঁর বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য, ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপরাধে আটটি মামলা রয়েছে।

কক্সবাজারঃ গতকাল রাত সাড়ে ১২টার দিকে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলা
সদর ইউনিয়নের নোয়াখালীপাড়ার টেকনাফ-কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ সড়কের পাশে  র‌্যাবের সঙ্গে
গোলাগুলিতে টেকনাফ পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ একরামুল হক নিহত হন।

র‍্যাব জানিয়েছে, একরামুল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের তালিকাভুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী
এবং টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ।

খুলনাঃ খুলনার বারাকপুরে গোলাগুলিতে পুলিশের তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী আবুল কালাম
এবং বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার চিংগুড়ি গ্রামে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মিতুল বিশ্বাস(৪৫)
নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়।নিহত মিতুল বিশ্বাস হত্যা ও মাদকসহ ২০ মামলার আসামি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

নোয়াখালী: নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি বাজার থেকে ২১ মামলার আসামি
মোহাম্মদ হাসানকে শনিবার বিকালে আটক করা হয়। রাত ৩টায় সোনাইমুড়ী উপজেলার বগাদিয়া এলাকায়
তাকে নিয়ে  মাদকদ্রব্য উদ্ধারে গেলে গোলাগুলিতে নিহত হন তিনি।  এ ঘটনায় পুলিশের তিনজন সদস্য আহত হয়েছেন।

কুষ্টিয়াঃ কুষ্টিয়ায় পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলিতে মাদক ও অস্ত্রসহ ৭ মামলার আসামি
আব্দুল হালিম নামের একজন নিহত হয়েছেন।পুলিশ জানায় মাদকের একটি চালান
হাউজিং ডি ব্লক দিয়ে যাচ্ছে এমন খবর পেয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশসহ যৌথ একটি দল
সেখানে অভিযানে  গেলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা গুলি চালায় ফলশ্রুতিতে পুলিশও গুলি ছোড়ে ।
গোলাগুলি শেষে নিহত আব্দুল হালিম এর লাশ পাওয়া যায়।

ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ ইউনিয়নের দুর্লভপুর এলাকার মহারাজা সড়কে
পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রফিকুল ইসলাম তলেবান (৫১) নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হন।
পুলিশের পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়  তাঁর বিরুদ্ধে মাদক নিয়ন্ত্রণ আইনে আটটি মামলা রয়েছে।

চাঁদপুরের মতলবে সাত মামলার আসামি মোহাম্মদ সেলিম (৩৭), ঝিনাইদহের শৈলকুপায় ১২ মামলার আসামি
রফিকুল ইসলাম লিটন ও ময়মনসিংহে অজ্ঞাত নামা একজন নিহত হয়েছে।

অন্যদিকে  মেহেরপুরের গাংনীতে মাদক ব্যবসায়ী দুই পক্ষের গোলাগুলিতে 
হাফিজুর রহমান নামে এক মাদক ব্যবসায়ীর লাশ পাওয়া গেছে।

পুলিশ সদর দপ্তর এর সূত্র মতে  ১৭ মে থেকে ২৬ মে  পর্যন্ত নয় দিনে সারা দেশে
পুলিশের মাদকবিরোধী বিশেষ অভিযানে ১৩ দিনে নিহতের সংখ্যা ৮৬ এবং
মাদক ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে সাত হাজার ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

তাঁদের কাছ থেকে ১৫ লাখ ইয়াবা, ২ হাজার কেজি গাঁজা, ১৭ কেজি হেরোইন,
১৩ হাজার বোতল ফেনসিডিল ও ১ হাজার ১০০ ক্যান বিয়ার উদ্ধার করা হয়।
এসব ঘটনায় দেশের বিভিন্ন থানায় সাড়ে পাঁচ হাজার মামলা হয়েছে।

Share this post