মৃত নবজাতককে ডাস্টবিনে নিক্ষেপ!!

মৃত নবজাতককে ডাস্টবিনে নিক্ষেপ!!

চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ থানার চকবাজার এলাকার পিপলস হাসপাতাল প্রসব হওয়া মৃত নবজাতকের লাশ কার্টনে ভরে ডাস্টবিনে ফেলে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে  পিপলস হাসপাতালের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার (২২ মে) সকালে এ ঘটনা ঘটে  বলে জানান অভিভাবকরা। অভিভাবকেরা প্রথমে নবজাতক চুরির অভিযোগ এনে পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয়।পরে পুলিশ ও নবজাতকটির অভিভাবকদের দাবির মুখে সন্ধ্যায় ডাস্টবিন থেকে খুঁজে এনে মৃত নবজাতককে অভিভাবকদের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

নগরীর পুরাতন চান্দগাঁও থানার খাজা রোডের বাসিন্দা মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী মো. ফরিদের স্ত্রী আমেনা বেগম (২৬) হাসপাতালটিতে মঙ্গলবার ভোরে প্রসববেদনা নিয়ে পিপলস হাসপাতালে ভর্তি হন।চিকিৎসক বিশাখা ঘোষ ও কুসুম আক্তার তাঁর অস্ত্রোপাচারের পর ওই নারী যমজ সন্তান প্রসব করেন।

এর মধ্যে ছেলে নবজাতকটি মৃত বলে জানান চিকিৎসকেরা। আমেনার সদ্যোজাত কন্যাসন্তানকে আরেকটি বেসরকারি হাসপাতালে নবজাতকদের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে রাখা হয়েছে।।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকের দাবি, অভিভাবকের অনুমতিক্রমে লাশ ফেলা হয়েছে।চিকিৎসক বিশাখা ঘোষের দাবি, অস্ত্রোপচারের পর একটি ট্রেতে করে তুলায় মোড়ানো মৃত শিশুটিকে স্বজনদের দেখানো হয়।কিন্তু নবজাতকের অন্য স্বজনেরা দাবি করে, কর্তৃপক্ষ কাউকে না জানিয়ে লাশ ডাস্টবিনে ফেলে দিয়েছে।

পিপলস হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুভাষ চন্দ্র সূত্রধর সাংবাদিকদের বলেন, অভিভাবক অনুমতি দেয়ার লাশটি ফেলে দেয়া হয়। পরে অন্যরা এসে দাবি করলে আমরা লাশ উদ্ধার করে তাদের নিকট হস্তান্তর করেছি।

Share this post