দাবি না মানলে কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা

দাবি না মানলে কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা

দাবি না মানলে কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের।
তারা বলেন, সরকার আমাদের দাবি না মানলে কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দেয়া হবে।

আজ বেলা ১২টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) টিএসসিতে বিক্ষোভ মিছিল পরবর্তী এক সমাবেশে তারা এই ঘোষণা দেন।
এর আগে আন্দোলনকারীদের প্লটফর্ম ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’র ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল করে তারা ।

মিছিল পরবর্তী সমাবেশে পরিষদের নেতারা বলেন, ছয় মাস আগে প্রধানমন্ত্রী জাতীয় সংসদে কোটা বাতিলের ঘোষণা দেন ।
কিন্তু তার ঘোষণার এতদিন পরেও সেটা বাস্তবায়ন হয়নি। উপরন্তু ছাত্রদের নামে মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে ।
তারা সরকার ও ঢাবি প্রশাসনের প্রতি সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের আহ্বান জানান ।

মিছিল পরবর্তী সমাবেশে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার প্রজ্ঞাপন দ্রুত জারি করার দাবি জানিয়ে
দাবি না মানলে আবারো মাঠে নামার হুশিয়ারি দেন কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরা ।

সমাবেশে তিন দফা দাবি তুলে ধরেন কোটা সংস্কার আন্দোরনের যুগ্ম আহবায়ক রাঁশেদ খান। তাদের দাবিগুলো হলো-
১.সকল ধরনের চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান কোটা ৫ দফার আলোকে সংস্কার করে অতি দ্রুত প্রজ্ঞাপন জারি করতে হবে।
২.নিরাপরাধ ছাত্রদের উপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং বিচার নিশ্চিত করতে হবে ।
৩.নিরাপরাধ ছাত্রদের উপর দায়ের করা সকল ধরণের মিথ্যা মামলা অতি দ্রুত প্রত্যাহার করতে হবে ।

পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর বলেন,
কোটা সংস্কার যৌক্তিক দাবি সত্ত্বেও এই আন্দোলনে ছাত্রদের ওপর হামলা- মামলা দেয়া হয়েছে ।
আমরা কোটা বাতিল চাইনি। প্রধানমন্ত্রী কোটা বাতিলের ঘোষণা দিয়েছেন।
প্রধানমন্ত্রী চাইলে কোটা বাতিল করতে পারেন। তবে কোটা সংস্কার করলে পাঁচ দফার আলোকে করতে হবে ।

আজ বেলা সাড়ে ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইন্স লাইব্রেরীর সামনে থেকে আন্দোলনকারীরা বিক্ষোভ মিছিল
বের করে ঢাবির কেন্দ্রীয় লাইব্রেরীর সামনে আসে ।
সেখানে কোটা সংস্কারের প্রজ্ঞাপন ছাড়া ৪০তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি ছাত্র সমাজ মানে না বলে তারা স্লোগান দিতে থাকে ।
এর পর তারা আবার মিছিল বের করে। মিছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবন, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ,
মুহসীন হল, ভিসি চত্বর হয়ে টিএসসিতে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে ।

Share this post