জন্মনিয়ন্ত্রণ সম্পর্কে কী বলে ইসলাম ?

জন্মনিয়ন্ত্রণ সম্পর্কে কী বলে ইসলাম ?

সংসারকে সচ্ছল করার নিয়তে জন্মনিয়ন্ত্রণ নিষিদ্ধ।কেননা রূযীর মালিক আল্লাহ।

আল্লাহ বলেন,
‘দারিদ্র‍্যের ভয়ে তোমরা তোমাদের সন্তানকে হত্যা কর না। তাদেরকে এবং তোমাদেরকে আমিই খাদ্য প্রদান করে থাকি’।
(সূরা : ইসরা ৩১)।

রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেন, تزوجوا الودود الولود ، فإني مكاثر بكم الأمم يوم القيامة“
তোমরা অধিক সন্তানের প্রসবনী ও স্বামীদের অধিক ভালোবাসে এ ধরনের মেয়েদের বিবাহ কর,
কারণ, কিয়ামতের দিন আমি আমার উম্মত বেশি হওয়ার কারণে আল্লাহর দরবারে গর্ব করব।”
(আবুদাঊদ, নাসাঈ, মিশকাত হা/৩০৯১)।

তবে স্ত্রী ও সন্তানের স্বাস্থ্যের দিকে লক্ষ্য রেখে স্ত্রীর অনুমতিক্রমে আযল বা জন্ম নিয়ন্ত্রণ করা যায়।
(বুখারী, মুসলিম, মিশকাত হা/৩১৮৪)।

জন্মনিয়ন্ত্রণে স্থায়ী পদ্ধতির ব্যবহার–
যার দ্বারা নারী বা পুরুষ প্রজনন ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে।এই পদ্ধতিটি সম্পূর্ণ অবৈধ।
আল্লামা বদরুদ্দিন আইনী (র.) বুখারী শরীফের ব্যাখ্যায় উল্লেখ করেন: و هو محرم بالاتفاق
অথাৎ স্থায়ী জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি অবলম্বন সর্বসম্মতক্রমে হারাম।(উমদাতুল ক্বারীঃ ১৪/১৪ পৃঃ)

জন্মনিয়ন্ত্রণে অস্থায়ী পদ্ধতি ব্যবহার –
যার ফলে স্বামী-স্ত্রীর কেউ প্রজনন ক্ষমতাহীন হয়ে যায় না ।
যেমন : আযল করা (সহবাসের চরম পুলকের মুহুর্তে স্ত্রীর যোনীর বাহিরে বীর্যপাত ঘটানো),
Condom Jelly, Cream, Foam, Douche ইত্যাদি ব্যবহার করা, পিল (Pill) খাওয়া ,
জরায়ুর মুখ সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয়া, ইঞ্জেকশন নেয়া ইত্যাদি। এ পদ্ধতি কেবল নিম্মোক্ত ক্ষেত্রে বৈধ হবে ।

১-দুই বাচ্চার জন্মের মাঝে কিছু সময় বিরতি দেওয়া যাতে প্রথম সন্তানের লালন-পালন, পরিচর্যা ঠিকমত হয় ।

২-কোন কারণে মহিলার বাচ্চা লালন-পালনের সামর্থ না থাকলে ।

৩-মহিলা অসুস্থ ও দূর্বল হওয়ার কারণে গর্ভধারণ বিপদজনক হলে ।

হযরত জাবের রা. থেকে বর্ণিত,তিনি বলেন আমরা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের যুগে
আযল(যা জন্ম নিয়ন্ত্রণের একটা পুরনো ও অস্থায়ী পদ্ধতি) করতাম । (বুখারী ২ / ৭৮৪)

সুতরাং উক্ত আলোচনা থেকে আশা করি এটা পরিস্কার হয়েছে যে,
ইসলাম জন্মনিয়ন্ত্রণের সকল পদ্ধতি নয় বরং বিশেষ পদ্ধতির এবং সাধারণ অবস্থাতে নয়; বরং বিশেষ অবস্থাতে এর অনুমোদন দেয়। অন্যথায় সাধারণ অবস্থায় ইসলাম মানুষকে অধিক সন্তানলাভের প্রতি উৎসাহ দিয়েছে এবং যে সব নারীরা অধিক সন্তানের প্রসবনী হয়ে থাকে, তাদের বিবাহ করতে নির্দেশ দিয়েছে ।

Share this post