গুগলকে ৪২ হাজার কোটি টাকা জরিমানা ইইউ’র

গুগলকে ৪২ হাজার কোটি টাকা জরিমানা ইইউ’র

অন্য অপারেটিং সিস্টেমের চাইতে অ্যান্ড্রয়েড এর আধিপত্য বিস্তারে অবৈধ উপায় অবলম্বন
করার দায়ে প্রযুক্তি জায়ান্ট গুগলকে পাঁচ বিলিয়ন ডলার(৪২ হাজার ২৫৮ কোটি টাকা)
জরিমানা করেছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে (ইইউ)।

বুধবার বেলজিয়ামের ব্রাসেলসে অ্যান্টি ট্রাস্ট মামলায় গুগলকে রেকর্ড পরিমাণ জরিমানা করে ইইউ।
জরিমানার পরিমাণ ঠিক থাকলে অ্যান্টিট্রাস্ট মামলায় এটিই হবে রেকর্ড জরিমানা,
ইইউ’র সিদ্ধান্তের সঙ্গে সম্পৃক্ত এক সূত্রের বরাতে এ খবর প্রকাশ করেছে ব্লুমবার্গ।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন বলেছে, গুগল তাদের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের মাধ্যমে
ব্যবহারকারীদের তাদের সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করতে বাধ্য করে। এটি ইইউ’র অ্যান্টি ট্রাস্ট আইনের বিরোধী।

প্রথম কোন প্রতিষ্ঠান অ্যান্টি ট্রাস্টের এতো বড় পরিমাণ জরিমানার সম্মুখীন হল।
গুগল যদিও এর আগে অ্যান্টি ট্রাস্টের রেকর্ড জরিমানার সম্মুখীন হয়েছে।
কিন্তু সেটার পরিমাণ ছিল ২৪০ কোটি মার্কিন ডলার।

আগেরবার ব্যবসার ক্ষেত্রে নিজেদের টুল ব্যবহার করে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে
গুগলের শপিং-সার্চ সেবা নিয়ে তদন্তের জের ধরে
২০১৭ সালে ইউরোপিয়ান কমিশন ২৪০ কোটি ইউরো জরিমানা করেছিল।

তিন বছর ধরে গুগলের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করে এই সিদ্ধান্তে আসে ইইউ।
বেলজিয়ামের ব্রাসেলসে সংস্থাটির পরবর্তী সম্মেলনে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানানো হবে।
কোনো একক প্রতিষ্ঠানকে এর আগে এত বড় অংকের জরিমানা করার নজির নেই।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন কম্পিটিশন কমিশনার মার্গারেট ভেস্তাগার বলেছেন,
গুগল তাদের অ্যান্ড্রয়েড ইকোসিস্টেমে শুধু গুগলের অ্যাপ ডিফল্ট হিসেবে রাখতে
ফোনের প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানগুলোকে চাপ দিচ্ছিল ।

এগুলোর মধ্যে ছিল যেসব প্রতিষ্ঠান গুগলের ক্রোম বা ক্রোম অ্যাপ তাদের ফোনে
প্রি-ইন্সটল করতো না তাদের ফোনে প্লে স্টোর রাখার সুযোগ রাখে না গুগল।

মার্গারেট ভেস্তাগার সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন,
ব্যবহারকারীদের অবশ্যই নিজেদের পছন্দ বেছে নেবার অধিকার রয়েছে।

সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য থেকে জানা যায়,
এই জরিমানা আরোপের বিরুদ্ধে কোম্পানিটি আপিল করার সুযোগ পাবে।

গুগলের মুখপাত্র আল ভার্নে বলেন,
‘অ্যান্ড্রয়েড প্রত্যেক ব্যবহারকারীদের আরো বেশি পছন্দ বেছে নেয়ার সুযোগ দেয়।
আমরা কমিশনের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করব।’

গুগলের মালিক প্রতিষ্ঠান অ্যালফাবেটকে তাদের ব্যবসায়িক নীতি পরিবর্তনের জন্য
৯০ দিনের সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে ।
তা না হলে গুগলের প্রতিদিনের বৈশ্বিক আয়ের ওপর আরো পাঁচ শতাংশ জরিমানা দিতে হবে ।

Share this post